Sunday, June 13, 2021
Home ঝিনাইদহ ঝিনাইদহে শৈলকুপায় ৪০ ইঞ্চি ছেলে ও ৪২ ইঞ্চি মেয়ে বিয়ে সম্পন্ন, মুখরিত...

ঝিনাইদহে শৈলকুপায় ৪০ ইঞ্চি ছেলে ও ৪২ ইঞ্চি মেয়ে বিয়ে সম্পন্ন, মুখরিত গ্রামবাসী

সাজ্জাতুল জুম্মা,ঝিনাইদহ- ছেলে বামন হওয়ায় বিয়ের জন্য কনে মিলবে কিনা তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন বাবা-মা। অন্যদিকে বামন মেয়েকে নিয়েও চিন্তায় ছিলেন পরিবারের লোকজন। দীর্ঘ চেষ্টার পর অবশেষে শুক্রবার (০৯ এপ্রিল) রাতে ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌর এলাকার আউশিয়া গ্রামে দুই বামন ছেলে-মেয়ের বিয়ে দেওয়া হয়েছে। গ্রামের লোকজনের সহযোগিতায় তাদের বিয়ে দেওয়া হয়।

শনিবার (১০ এপ্রিল) সকাল থেকেই নবদম্পতিকে দেখতে বরের বাড়িতে ভিড় করেন উৎসুক জনতা। অনেকে উপহার হাতে তুলে দিয়ে এই দম্পতির জন্য দোয়া করেন।

শৈলকুপা পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. বকুল আলী বিশ্বাস জানান, পৌর এলাকার আউশিয়া গ্রামের আজিবার মন্ডলের ছেলে আব্বাস মন্ডল তেমন কোনো কাজকর্ম করতে পারেন না। আমরা পৌরসভা থেকে তার জন্য একটা প্রতিবন্ধী কার্ড করে দিয়েছি। আব্বাস বামন হওয়ায় তার বয়স ৩০ হলেও উচ্চতা মাত্র ৪০ ইঞ্চি। বামন হওয়ায় কেউ তার সঙ্গে মেয়ে বিয়ে দিতে চাইতো না। এর মধ্যে গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার লক্ষন্দিয়া গ্রামের ইউনুস আলী মোল্লার বড় মেয়ে বামন মিম খাতুনকে তার পছন্দ হয়। পরে এলাকার লোকজনের সহযোগিতায় তাদের বিয়ে দেওয়া হয়।

আব্বাস এর মা সাহিদা বেগম জানান, তার দুই ছেলে। ছোট ছেলের উচ্চতা স্বাভাবিক। অনেক আগেই ছোট ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু বড় ছেলে আব্বাস বামন হওয়ায় তাকে নিয়ে সব সময় চিন্তা করতেন পরিবার। অবশেষে সেই দুশ্চিন্তার অবসান ঘটেছে। লক্ষন্দিয়া গ্রামের ইউনুস আলীর বড় মেয়ে বামন হাওয়ায় ছেলের বউ হিসেবে পছন্দ করেন। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় শুক্রবার রাতে আব্বাস-মিমের বিয়ে হয়। রাতেই পুত্রবধূকে বাড়িতে নিয়ে এসেছেন। ছেলের বিয়ে দিতে পেরে তারা খুশি। বউকে নিয়ে ছেলে সুখী হবে এখন এটাই আশা।

স্থানীয় ওষুধ ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেন জানান, শনিবার সকালে গ্রামের কয়েকজন মিলে নবদম্পতিকে দেখতে আব্বাস মন্ডলের বাড়িতে যাই। ব্যতিক্রমী এই নবদম্পতিকে দেখে তাদের হাতে উপহার তুলে দেই।

শৈলকুপা পৌরসভার মেয়র কাজী আশরাফুল আজম বলেন, আউশিয়া গ্রামের আব্বাস মন্ডল বামন হওয়ায় তাকে আমরা একটি প্রতিবন্ধী কার্ড করে দিয়েছি। সেখান থেকে তিনি আর্থিক সুবিধা পান। তার বয়স ৩০ এর বেশি হলেও বিয়ের জন্য কোনো মেয়েই তাকে পছন্দ করতো না। হঠাৎ করেই আজ জানতে পারি লক্ষন্দিয়া গ্রামের ইউনুস আলীর মেয়ে বামন মিমের সঙ্গে গত রাতে তার বিয়ে হয়েছে।

নবদম্পতি আব্বাস ও মিম জানান, সমাজের চোখে বামন হলেও বিয়ে করে তারা খুশি। ভবিষৎ এ তারা যেন সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে পারে সবার কাছে এই দোয়া কামনা করেন।

- Advertisment -

সব খরব

২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট ১৪ই জুন

নিজস্ব প্রতিবেদক- আগামী বছরের (২০২২ সাল) এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। আগামী ১৪ জুন (সোমবার) থেকে এ কার্যক্রম...

বিশ্বে করোনায় সাড়ে ৯ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু

সমীকরণ প্রতিবেদন- মহামারি করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে সাড়ে ৯ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছেন। করোনা শনাক্ত হয়েছে সাড়ে ৩...

একসঙ্গে দুইয়ের বেশি বাচ্চা জন্ম দিয়ে বিশ্ব রেকর্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক- যমজ বাচ্চা প্রসবের ঘটনা এত বেশি ঘটছে যে এখন আর বিস্ময়কর লাগে না। আমরা তখনই অবাক হই যখন শুনি কোনো...

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়লো

নিজস্ব প্রতিবেদক- করোনা পরিস্থিতিতে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাধারণ ছুটির মেয়াদ আরেক দফা বাড়লো। আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত এই ছুটি বাড়ানো হয়েছে।