Sunday, May 29, 2022
Home ঝিনাইদহ ঝিনাইদহে শৈলকুপায় ৪০ ইঞ্চি ছেলে ও ৪২ ইঞ্চি মেয়ে বিয়ে সম্পন্ন, মুখরিত...

ঝিনাইদহে শৈলকুপায় ৪০ ইঞ্চি ছেলে ও ৪২ ইঞ্চি মেয়ে বিয়ে সম্পন্ন, মুখরিত গ্রামবাসী

সাজ্জাতুল জুম্মা,ঝিনাইদহ- ছেলে বামন হওয়ায় বিয়ের জন্য কনে মিলবে কিনা তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন বাবা-মা। অন্যদিকে বামন মেয়েকে নিয়েও চিন্তায় ছিলেন পরিবারের লোকজন। দীর্ঘ চেষ্টার পর অবশেষে শুক্রবার (০৯ এপ্রিল) রাতে ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌর এলাকার আউশিয়া গ্রামে দুই বামন ছেলে-মেয়ের বিয়ে দেওয়া হয়েছে। গ্রামের লোকজনের সহযোগিতায় তাদের বিয়ে দেওয়া হয়।

শনিবার (১০ এপ্রিল) সকাল থেকেই নবদম্পতিকে দেখতে বরের বাড়িতে ভিড় করেন উৎসুক জনতা। অনেকে উপহার হাতে তুলে দিয়ে এই দম্পতির জন্য দোয়া করেন।

শৈলকুপা পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. বকুল আলী বিশ্বাস জানান, পৌর এলাকার আউশিয়া গ্রামের আজিবার মন্ডলের ছেলে আব্বাস মন্ডল তেমন কোনো কাজকর্ম করতে পারেন না। আমরা পৌরসভা থেকে তার জন্য একটা প্রতিবন্ধী কার্ড করে দিয়েছি। আব্বাস বামন হওয়ায় তার বয়স ৩০ হলেও উচ্চতা মাত্র ৪০ ইঞ্চি। বামন হওয়ায় কেউ তার সঙ্গে মেয়ে বিয়ে দিতে চাইতো না। এর মধ্যে গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার লক্ষন্দিয়া গ্রামের ইউনুস আলী মোল্লার বড় মেয়ে বামন মিম খাতুনকে তার পছন্দ হয়। পরে এলাকার লোকজনের সহযোগিতায় তাদের বিয়ে দেওয়া হয়।

আব্বাস এর মা সাহিদা বেগম জানান, তার দুই ছেলে। ছোট ছেলের উচ্চতা স্বাভাবিক। অনেক আগেই ছোট ছেলেকে বিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু বড় ছেলে আব্বাস বামন হওয়ায় তাকে নিয়ে সব সময় চিন্তা করতেন পরিবার। অবশেষে সেই দুশ্চিন্তার অবসান ঘটেছে। লক্ষন্দিয়া গ্রামের ইউনুস আলীর বড় মেয়ে বামন হাওয়ায় ছেলের বউ হিসেবে পছন্দ করেন। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় শুক্রবার রাতে আব্বাস-মিমের বিয়ে হয়। রাতেই পুত্রবধূকে বাড়িতে নিয়ে এসেছেন। ছেলের বিয়ে দিতে পেরে তারা খুশি। বউকে নিয়ে ছেলে সুখী হবে এখন এটাই আশা।

স্থানীয় ওষুধ ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেন জানান, শনিবার সকালে গ্রামের কয়েকজন মিলে নবদম্পতিকে দেখতে আব্বাস মন্ডলের বাড়িতে যাই। ব্যতিক্রমী এই নবদম্পতিকে দেখে তাদের হাতে উপহার তুলে দেই।

শৈলকুপা পৌরসভার মেয়র কাজী আশরাফুল আজম বলেন, আউশিয়া গ্রামের আব্বাস মন্ডল বামন হওয়ায় তাকে আমরা একটি প্রতিবন্ধী কার্ড করে দিয়েছি। সেখান থেকে তিনি আর্থিক সুবিধা পান। তার বয়স ৩০ এর বেশি হলেও বিয়ের জন্য কোনো মেয়েই তাকে পছন্দ করতো না। হঠাৎ করেই আজ জানতে পারি লক্ষন্দিয়া গ্রামের ইউনুস আলীর মেয়ে বামন মিমের সঙ্গে গত রাতে তার বিয়ে হয়েছে।

নবদম্পতি আব্বাস ও মিম জানান, সমাজের চোখে বামন হলেও বিয়ে করে তারা খুশি। ভবিষৎ এ তারা যেন সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে পারে সবার কাছে এই দোয়া কামনা করেন।

- Advertisment -

সব খরব

মিয়ানমারের জান্তাকে অস্ত্র সরবরাহ করছে চীন, রাশিয়া ও সার্বিয়া

সমীকরণ ডেস্ক- মিয়ানমারের জান্তাকে অস্ত্র সরবরাহ করছে চীন, রাশিয়া ও সার্বিয়া। গত বছরের অভ্যুত্থানের পর থেকে মিয়ানমারের জান্তাকে অস্ত্র সরবরাহ করছে চীন,...

চলতি বছরেই ৬২ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সপ্তাহে দুই দিন ছুটি

সমীকরণ প্রতিবেদক - নতুন কারিকুলাম বাস্তবায়নে পাইলটিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এর আওতায় দেশের ৬২ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীরা চলতি বছর সপ্তাহে দুই...

বাংলাদেশ-ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকে তিস্তা নিয়ে আলোচনা

সমীকরণ প্রতিবেদক- প্যারিসে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠকে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী...

মাঘের শীতে কাঁপছে উত্তরাঞ্চলের মানুষ

সমিকরণ প্রতিনিধি- মাঘের শীতে কাঁপছে দিনাজপুরসহ উত্তরাঞ্চলের মানুষ। তীব্র শীত আর কনকনে ঠাণ্ডা বাতাসে এ অঞ্চলের মানুষের জবুথবু অবস্থা। আগুন জ্বালিয়ে শীত...